মাটি ও মানুষের জন্য রাজনীতি করি : আব্দুল মজিদ খান এমপি

হবিগঞ্জ-২ (বানিয়াচং-আজমিরীগঞ্জ) আসনের সংসদ সদস্য এডভোকেট আলহাজ্ব আব্দুল মজিদ খান এমপি বাংলা কণ্ঠ পত্রিকাকে দেয়া একান্ত সাক্ষাতকারে বলেন, আমি রাজনীতি করি মাটি ও মানুষের জন্য, মানুষ আমাকে ভোট দিয়ে জাতীয় সংসদে পাঠিয়েছে তাদের চাওয়া পাওয়ার কথা বলার জন্য। আমি মৃত্যুর পূর্ব মুহুর্ত পর্যন্ত মানুষের সেবা করে যেতে চাই। জনগনের সেবা করার তৌফিক আল্লাহ তায়ালা সবাইকে দান করেন না। আমি এটাকে এবাদত মনে করি।

সম্প্রতি বাংলা কণ্ঠ পত্রিকার সম্পাদক এস এম খোকন সংসদ সদস্যের সাথে আলাপ কালে তিনি উপরোক্ত কথা গুলো বলেন। তিনি সংসদ সদস্য ছাড়া আইন পেশার সাথে নিয়োজিত আছেন। তার গ্রামের বাড়ী বানিয়াচং উপজেলার কবির পুর গ্রামে। বর্তমানে বাধন কুটির ৭৩ মৌচাক, টাউনহল রোডে নিজ বাসায় তিনি বসবাস করছেন।
রাজনৈতিক পরিচয় : তিনি হবিগঞ্জ জেলা আওয়ামীলীগের সাধারন সম্পাদক।

প্রশ্ন : আাপনি এমপি নির্বাচিত হওয়ার পর থেকে নির্বাচনী এলাকার শিক্ষার হার বাড়ানোর লক্ষ্যে কি কি উদ্যোগ গ্রহন করেছেন?

উত্তর : আমি হবিগঞ্জ-২(বানিয়াচং-আজমিরীগঞ্জ) আসনের সংসদ সদস্য নির্বাচিত হওয়ার পর শিক্ষাক্ষেত্রে অভূতপূর্ণ উন্নয়ন ঘটেছে। শিক্ষার হার, শিক্ষার মান ও শিক্ষাপ্রতিষ্টানের অবকাটামো তৈরীতে এই সরকার বিশাল ভুমিকা পালন করে আসছে। ২০০৯ সালে আমার নির্বাচনী এলাকায় পি এস সি, জে এস সি, এস এস সি ও এইচ এস সিতে পাশের হার ছিল শতকরা ৩৫ থেকে ৩৮ ভাগ। যা বর্তমানে দাড়িয়েছে ৮৫ থেকে ৯৫ ভাগ। ইতিমধ্যে নির্বাচনী এলাকায় ১৩টি শিক্ষা প্রতিষ্টান উচ্চ বিদ্যারয়, মাদ্রাসা, কলেজ এমপিও ভূক্ত করা হয়েছে।

৬২টি প্রাথমিক বিদ্যালয় সরকারী করনসহ শিক্ষকদের চাকুরী সরকারী করা হয়েছে। এস ই এস ডিপি প্রজেক্টের মাধ্যমে ৫টি দ্বীতল ও ত্বীতল ভবন করে হাইস্কুল করা হয়েছে। যাহাতে ইতিমধ্যে ছাত্র/ছাত্রী এস এস সি পরিক্ষা দিতে সক্ষম হয়েছে। কলেজ, মাদ্রাসা উচ্চ বিদ্যালয়ের ৪০টি নতুন ভবন নির্মান করা হয়েছে। এছাড়া সরকারের ও স্থানীয় লোকজনের সহযোগিতায় ২টি কলেজ ও ৩টি হাইস্কুল স্থাপিত হয়েছে। যে সকল ইউনিয়নে বিদ্যালয়ের অভাবে শিক্ষার্থীরা শিক্ষা থেকে বঞ্চিত হত সে সব ইউনিয়নে জরুরী ভিত্তিতে বিদ্যালয় নির্মান করা হয়েছে। এ ছাড়া বিদ্যালয় বিহীন গ্রামে সরকারী ৫টি প্রাথমিক বিদ্যালয় স্থাপন করা হয়েছে।

জনাব আলী ড্রিগ্রী কলেজ, আদর্শ কলেজ ও এ বি সি উচ্চ বিদ্যালয় সম্প্রতি জাতীয় করনের কাজ চলছে।

প্রশ্ন : আাপনি এমপি নির্বাচিত হওয়ার পর থেকে এলাকার যোগাযোগ ব্যবস্থার কি উন্নয়ন করেছেন?

উত্তর : আমি সংসদ সদস্য নির্বাচিত হওয়ার পর থেকে এলাকার জনগণের দীর্ঘদিনের দাবী পূরনের লক্ষ্যে ১১৬ কোটি টাকা ব্যয়ে ২২কিলোমিটার লম্বা বানিয়াচং হইতে আজমিরীগঞ্জ “শরিফউদ্দিন” সড়ক, ৫০ কোটি টাকা ব্যয়ে বানিয়াচং হইতে শিবপাশা সড়ক, ৫০ কোটি টাকা ব্যয়ে বানিয়াচং হইতে নবীগঞ্জ রাস্তার কাগাপাশা সড়ক, হবিগঞ্জ হইতে সুজাতপুর সড়ক, টিক্কাজুড়ি হইতে আগুয়া সড়ক, হবিগঞ্জ নবীগঞ্জ রাস্তা হইতে ধুলিয়া ঘাটুয়া হয়ে কাগাপাশা সড়ক, কাগাপাশা বাজার হইতে চমকপুর বাজার সড়ক, কাদিরগঞ্জ মারখুলি হইতে পাহাড়পুর সড়ক, ছিলাপাঞ্জা হইতে কুন্ডুর পাড় সড়ক, গ্যানিংগঞ্জ বাজার হইতে বড়বাজার সড়ক, গ্যানিংগঞ্জ বাজার হইতে আদারবাড়ী সড়ক, বড়বাজার হইতে ৫/৬নং হয়ে বাবুর বাজার সড়ক, বড়বাজার হইতে গ্যানিংগঞ্জ বনমতুরা হয়ে শরিফ উদ্দিন সড়ক, শরিফ খানী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সামন হইতে ইকবাল হোসাইন খানের বাড়ীর সামন হয়ে পাতাইবাড়ী পর্যন্ত সড়ক, বনমতুরা হইতে রায়ের পাড়া কালিকাপাড়া সড়ক, আসকর উল্লার মসজিদ হইতে শরিফ উদ্দিন সাহেবের বাড়ী হয়ে শরিফ উদ্দিন সড়ক পর্যন্ত সড়ক, তোপখানা হইতে আদর্শবাজার সড়ক, ববাজার হইতে আদর্শ বাজার সড়ক, ব্র্যাক অফিস হইতে দৌলতপুর সড়ক, আদর্শবাজার হইতে পাহাড়পুর সড়ক, মাতাপুর হইতে মজলিশপুর সড়ক, আলিয়া মাদ্রাসা হইতে পশু হাসপাতাল সড়ক, আজমিরীগঞ্জ হইতে কাকাইলছেও সড়ক, ছলরী হইতে শীবপাশা সড়ক, নদীরপাড় হইতে কামালপুর সড়ক, আজমিরীগঞ্জ হইতে বদলপুর হয়ে পাহাড়পুর সড়ক, পশ্চিমবাগ বাজার হইতে নুরিয়া মাদ্রাসা সড়ক, জলসুখা বাজার হইতে পাটলিপাড়া হয়ে শরিফ উদ্দিন সড়ক, জলসুখা বাজার হইতে নৌকাঘাট সড়ক, শরিফ উদ্দিন সড়ক হইতে নোয়াগড় বাজার সড়ক, নোয়াগড় বাজার হইতে আদর্শবাজার সড়ক, পাহাড়পুর বাজার হইতে ঝিলুয়া সড়ক, করচা হইতে আড়িয়া মুগুর পর্যন্ত সড়কসহ নির্বাচনী এলাকার ব্রীজ কালভার্ট কাচা পাকা সড়ক নির্মান চলমানসহ বেশীর ভাগ সড়কের কাজই ইতিমধ্যে সমাপ্ত হয়েছে।

প্রশ্ন : আাপনি এমপি নির্বাচিত হওয়ার পর স্বাস্থ্যখ্যাতে কি উন্নয়ন করেছেন?

উত্তর ঃ আমি সংসদ সদস্য নির্বাচিত হওয়ার পর থেকে এলাকার জনগণের দীর্ঘদিনের দাবী পূরনের লক্ষ্যে স্বাস্থ্য খ্যাতে উন্নয়ন করতে বানিয়াচং হাসপাতালকে ৩১ শয্যা থেকে ৫০ শয্যায় উন্নিত করা হয়েছে। বানিয়াচং ও আজমিরীগঞ্জ হাসপাতালে ২টি এম্বুলেন্স দেয়া হয়েছে। নির্বাচনী এলাকায় ইউনিয়ন গুলোতে ইউনিয়ন স্বাস্থ্য কমপ্লেক্্র কমিউনিটি ক্লিনিক নির্মান করা হয়েছে। যার ফলেূ ২ উপজেলার জনগণের স্বাস্থ্য সেবার মান অন্য যে, কোন সময়ের চেয়ে ভাল রয়েছে।

প্রশ্ন : আাপনি এমপি নির্বাচিত হওয়ার পর বিদ্যুৎ খ্যাতে কি উন্নয়ন করেছেন?

উত্তর : আমি সংসদ সদস্য নির্বাচিত হওয়ার পর ৩০০কিলোমিটার এলাকায় নতুন সংযোগ দেয়া হয়েছে। চলতি বছরের মধ্যে আজমিরীগঞ্জ এবং ২০১৮ সালের মধ্যে বানিয়াচংয়ের যাবতীয় নতুন সংযোগের কাজ সমাপ্ত করা হবে।
ইতিমধ্যে সৌর বিদ্যুতের প্যানেল স্থাপনের মাধ্যমে মসজিদ, মাদ্রাসা, মন্দির, শিক্ষা প্রতিষ্ঠান, হাট বাজার গুলোতে বিদ্যুৎ দেয়া হয়েছে।

তিনি আরো বলেন হবিগঞ্জ-২(বানিয়াচং-আজমিরীগঞ্জ) আসনের সংসদ সদস্য নির্বাচিত হওয়ার পর থেকে এলাকার জনগণের সাথে সু-সম্পর্ক রাখতে গ্রাম্য শালিশ বৈঠকে নিয়মিত অংশ গ্রহন করছি। ফলে যে কোন সময়ের চেয়ে আমার নির্বাচনী এলাকার আইন শৃংখলা ভাল রয়েছে। বাল্য বিয়ে রোধে আওয়ামীলীগ সরকারের কার্যকরী ভ’মিকার কারণে সারা দেশে বাল্য বিয়ে কমে এসেছে। ইতি মধ্যে হবিগঞ্জ-২ (বানিয়াচং-আজমিরীগঞ্জ) এলাকার ২টি উপজেলাকে সরকারী ভাবে বাল্য বিবাহ মুক্ত ঘোষনা করা হয়েছে। এছাড়া নির্বাচনী এলাকার ২টি উপজেলাকে ইতি মধ্যেই শতভাগ স্যানিটেশনের আওতায় আনা হয়েছে।

উপজেলার গ্রামে গঞ্জে গভীর নলকূপ স্থাপন করে বিশুদ্ধ পানির ব্যবস্থা করা হয়েছে।
কৃষি ক্ষেত্রে প্রতিটি ইউনিয়নে ১টি করে পাওয়ার টিলার ও মাড়াই মেশিন দেয়া হয়েছে।
বাল্য বিয়ে রোধে আওয়ামীলীগ সরকারের কার্যকরী ভূমিকার কারণে সারা দেশে বাল্য কমে এসেছে। ইতি মধ্যে হবিগঞ্জ-২ (বানিয়াচং-আজমিরীগঞ্জ) এলাকার ২টি উপজেলাকে সরকারী ভাবে বাল্য বিবাহ মুক্ত ঘোষনা করা হয়েছে।

দলীয় পর্যায়ের আওয়ামীলীগসহ সকল অংগ সংঘটনের নেতা কর্মীদের ছাড়া ও এলাকার সর্ব শ্রেণীর মানুষের সাথে আমার সু-সম্পর্ক রয়েছে।

নির্বাচনী এলাকার ২টি উপজেলাকে ইতি মধ্যেই শতভাগ স্যানিটেশনের আওতায় আনা হয়েছে।
দুর্যোগ মোকাবেলার জন্য বানিয়াচং উপজেলায় ফায়ার সার্ভিস ষ্টেশন নির্মান করা হয়েছে।

আজমিরীগঞ্জ উপজেলায় প্রক্রিয়াধিন রয়েছে। আইন শৃংখলার উন্নয়নে পুলিশের একটি জীপের পরিবর্তে ২টি জীপ করা হয়েছে।

এছাড়া কমিউনিটি পুলিশিং কার্যক্রম বেগবান করা হয়েছে। ফলে যে কোন সময়ের তুলনায় নির্বাচনী এলাকার ২টি উপজেলার আইন শৃংখলা ভাল রয়েছে।

print

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *