1. sm.khakon@gmail.com : bkantho :
বাংলাদেশেকে সবধরনের সমর্থনের আশ্বাস ব্রিটিশ মন্ত্রী লর্ড আহমেদের - বাংলা কণ্ঠ নিউজ
মঙ্গলবার, ২৭ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ০৬:১৭ পূর্বাহ্ন

বাংলাদেশেকে সবধরনের সমর্থনের আশ্বাস ব্রিটিশ মন্ত্রী লর্ড আহমেদের

মতিয়ার চৌধুরী,লন্ডন
  • শুক্রবার, ২৩ জুন, ২০২৩
  • ১০৬ বার পড়া হয়েছে
বাংলাদেশেকে সবধরনের সমর্থনের আশ্বাস ব্রিটিশ মন্ত্রী লর্ড আহমেদের

যুক্তরাজ্যের মধ্যপ্রাচ্য-উত্তর-আফ্রিকা-দক্ষিন এশিয়া ও জাতিসংঘ বিষয়ক প্রতিমন্ত্রী লর্ড তারিক আহমেদ বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার অসামান্য নেতৃত্বের প্রশংসা করে বলেছেন বাংলাদেশের উল্লেখ যোগ্য অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি এবং তার দূরদর্শী নেতৃত্বে বাংলাদেশ-যুক্তরাজ্য সম্পর্ক উন্নত ও শক্তিশালী হওয়ায় সন্তোষ প্রকাশ করেন।

বাংলাদেশের ইন্দো-প্যাসিফিক আউটলুক এবং যুক্তরাজ্যের সঙ্গে উদীয়মান অংশীদারিত্ব শীর্ষক গোলটেবিল বৈঠকে বক্তব্য রাখতে গিয়ে ব্রিটিশ মন্ত্রী এসব কথা বলেন। সোমবার ব্রিটেনের হাউস অব লর্ডসে আয়োজিত অনুষ্ঠানে তিনি জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ১৯৭২ সালের ৮ জানুয়ারি লন্ডনে ঐতিহাসিক সফর এবং যুক্তরাজ্যের তৎকালীন প্রধানমন্ত্রী স্যার এডওয়ার্ড হিথের সঙ্গে তার বৈঠকের কথা তুলে ধরে বলেন সেসময় থেকে  যুক্তরাজ্যের  সাথে বাংলাদেশের শক্তিশালী এবং স্থায়ী দ্বিপাক্ষিক সম্পর্ক।

এবছর রাজা  চার্সের  রাজ্যাভিষেকের সময়  বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এবং ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী ঋষি সুনাকের মধ্যে বৈঠকের কথা তুলে ধরে লর্ড আহমেদ বলেন, দুই নেতার মধ্যে  উভয় ক্ষেত্রেই অত্যন্ত মূল্যবান বিনিময় হয়েছে।

তিনি দ্বিপাক্ষিক সম্পর্ককে নতুন উচ্চতায় এগিয়ে নিতে এ বছর বাংলাদেশ ও যুক্তরাজ্যের মধ্যে এভিয়েশন পার্টনারশিপ এবং জলবায়ু চুক্তিতে দুটি গুরুত্বপূর্ণ উপকরণ স্বাক্ষরের প্রশংসা করেন। তিনি বাংলাদেশের ইন্দো-প্যাসিফিক আউটলুকের অনেক আকাঙ্খা বাস্তবায়নের জন্য যুক্তরাজ্য সরকারের দৃঢ় সমর্থন ব্যক্ত করেন; এবং রোহিঙ্গা সংকট মোকাবেলায় বাংলাদেশের প্রচেষ্টার কথা তুলে ধরেন। তিনি দ্বিপাক্ষিক বাণিজ্য ও বিনিয়োগ, মেয়েদের শিক্ষা এবং সাইবার নিরাপত্তা বিষয়ে দুই দেশের মধ্যে সহযোগিতার কথাও তুলে ধরেন।

গোলটেবিল বৈঠকে মূল বক্তব্য রাখেন  বাংলাদেশের পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী মোঃ শাহরিয়ার আলম। এপ্রিল মাসে বাংলাদেশের ইন্দো-প্যাসিফিক আউটলুক উন্মোচনের তাৎপর্যের উপর জোরদেন । তিনি হাইলাইট করেন  ভারত মহাসাগর এবং বৃহত্তর ইন্দো-প্রশান্ত মহাসাগরীয় অঞ্চল প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ২০৪১ সালের মধ্যে বাংলাদেশকে একটি স্মার্ট ও জ্ঞানভিত্তিক দেশে গড়ে তোলা এবং জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের “সকলের প্রতি বন্ধুত্ব” বাস্তবায়নের লক্ষ্যে অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। এবং কারো প্রতি বিদ্বেষ নয়” পররাষ্ট্র নীতির নির্দেশ।

তিনি আরো বলেন ইন্দো-প্যাসিফিক আউটলুক বাংলাদেশের বৈদেশিক নীতি, এই অঞ্চলে অর্থনৈতিক ও সামুদ্রিক নিরাপত্তার স্বার্থের পাশাপাশি সবার জন্য ভাগ করা সমৃদ্ধির বৈশ্বিক আকাঙ্খা অনুসরণ করার জন্য প্রস্তুত।  বাংলাদেশের প্রতিমন্ত্রী বলেন যে ইন্দো-প্যাসিফিক আউটলুকের লক্ষ্য হচ্ছে পারস্পরিক আস্থা বাড়ানো, অংশীদারিত্ব প্রতিষ্ঠা করা এবং শান্তি, সমৃদ্ধি এবং নিরাপত্তার জন্য সংলাপকে উৎসাহিত করা।

অন্যান্য লক্ষ্যগুলির মধ্যে রয়েছে উপ-আঞ্চলিক অংশীদারিত্ব, টেকসই উন্নয়ন, শান্তি, নিরাপত্তা, মানবিক প্রচেষ্টা এবং মৌলিক অধিকার। তিনি বলেন  ইন্দো-প্যাসিফিক আউটলুক উপলব্ধি করার জন্য যুক্তরাজ্য বাংলাদেশের একটি গুরুত্বপূর্ণ অংশীদার রয়েছে  এবং যুক্তরাজ্যের ‘ইন্দো-প্যাসিফিক টিল্ট’-এর সাথে বাংলাদেশের অগ্রাধিকারগুলিকে একত্রিত করে এই অঞ্চলে ভাগ করা সমৃদ্ধি, শান্তি ও স্থিতিশীলতা অর্জনের জন্য যুক্তরাজ্যের সাথে একসাথে কাজ করার আগ্রহ প্রকাশ করেছেন।

কাঠামোতিনি বর্ধিত ও টেকসই বাণিজ্য, বিনিয়োগ এবং সবুজ সরবরাহ শৃঙ্খল, বিমান চলাচল, জলবায়ু, মহাসাগরীয় শাসন, সামুদ্রিক সংযোগ, প্রতিরক্ষা ও কৌশলগত সহযোগিতা এবং রোহিঙ্গা সংকটের বিষয়ে বাংলাদেশ ও যুক্তরাজ্যের মধ্যে অংশীদারিত্বের ওপর জোর দেন।

যুক্তরাজ্যে নিযুক্ত বাংলাদেশের হাইকমিশনার সাইদা মুনা তাসনিম তার স্বাগত বক্তব্যে যুক্তরাজ্যের সাথে বাংলাদেশের কৌশলগত প্রতিশ্রুতি আরও গভীর করার প্রতিশ্রুতি পুনর্ব্যক্ত করেন, যা বৈশ্বিক ব্রিটেন এবং প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সরকারের ইন্দো-প্যাসিফিক নীতির মধ্যে বৃহত্তর সমন্বয় আনয়ন করে।

বাংলাদেশ-যুক্তরাজ্য জলবায়ু চুক্তি এবং বাংলাদেশ-ইউকে এভিয়েশন অংশীদারিত্বের পাশাপাশি প্রায় ৬ বিলিয়ন মার্কিন ডলারের রেকর্ড দ্বিপাক্ষিক বাণিজ্যসহ দুটি গুরুত্বপূর্ণ চুক্তি স্বাক্ষরের কথা উল্লেখ করে হাইকমিশনার এ বছর বাংলাদেশ-যুক্তরাজ্য সম্পর্কের মধ্যে উল্লেখযোগ্য অগ্রগতি তুলে ধরেন। তিনি বলেন  এই উন্নয়নগুলি দুটি কমনওয়েলথ দেশের মধ্যে উদীয়মান অর্থনৈতিক এবং কৌশলগত অংশীদারিত্বের প্রমাণ হিসাবে কাজ করে।

লর্ড রামি রেঞ্জার, ইন্দো-প্যাসিফিকের অল পার্টি পার্লামেন্টারি গ্রুপের ভাইস চেয়ারম্যান; রুশনারা আলী এমপি, বাংলাদেশ ও রোহিঙ্গা বিষয়ে সর্বদলীয় সংসদীয় গ্রুপের চেয়ার এবং বাংলাদেশে যুক্তরাজ্যের প্রধানমন্ত্রীর বাণিজ্য দূত ভিসকাউন্ট ওয়েভারলি, বাণিজ্য ও বিনিয়োগ সংক্রান্ত সর্বদলীয় সংসদীয় গ্রুপের ভাইস চেয়ারম্যান এবং সচিব; গিল্ডফোর্ডের আরটি মাননীয় লর্ড হাওয়েল, পররাষ্ট্র দফতরের সাবেক জ্বালানি ও পরিবহন সচিব এবং প্রাক্তন মন্ত্রী জেন হান্ট এমপি, ব্যবসা, জ্বালানি এবং শিল্প কৌশল বিভাগের সাবেক মন্ত্রী; বীরেন্দ্র শর্মা এমপি, বাংলাদেশের সর্বদলীয় সংসদীয় গ্রুপের ভাইস চেয়ারম্যান এবং যুক্তরাজ্যে ভারতের হাইকমিশনার বিক্রম দোরাইস্বামীও বাংলাদেশের ইন্দো-প্যাসিফিক আউটলুক সম্পর্কে তাদের দৃষ্টিভঙ্গি শেয়ার করেন।

যুক্তরাজ্যের পার্লামেন্টের ইন্দো-প্যাসিফিক বিষয়ক অল-পার্টি পার্লামেন্টারি গ্রুপ এবং লন্ডনে বাংলাদেশ হাইকমিশন যৌথভাবে এই অনুষ্ঠানের আয়োজক ছিল, যেখানে যুক্তরাজ্যের পার্লামেন্টের অল-পার্টি পার্লামেন্টারি গ্রুপ অন ইন্দো-প্যাসিফিক এবং বাংলাদেশের সদস্যরা উপস্থিত ছিলেন। হাউস অফ কমন্স এবং হাউস অফ লর্ডস উভয়ের বেশ কয়েকজন সদস্য এবং যুক্তরাজ্যের ফরেন, কমনওয়েলথ এবং ডেভেলপমেন্ট অফিস (FCDO) এর প্রতিনিধিরা।

সামাজিক মিডিয়ায় শেয়ার করুন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরো খবর
Developer By Zorex Zira

Designed by: Sylhet Host BD