1. sm.khakon@gmail.com : bkantho :
সড়ে দাড়ালেন বরিস, ঋসি সোনাকের প্রধানমন্ত্রী হওয়া নিশ্চিত - বাংলা কণ্ঠ নিউজ
February 4, 2023, 2:39 am

সড়ে দাড়ালেন বরিস, ঋসি সোনাকের প্রধানমন্ত্রী হওয়া নিশ্চিত

মতিয়ার চৌধুরী, লন্ডন থেকে
প্রথম ভারতীয় বংশদ্ভোত ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী হিসেবে ইতিহাস গড়লেন ঋষি সুনাক

প্রধানমন্ত্রী পদে আর লড়বেন না  বরিস জনসন, প্রতিযোগীতা থেকে সড়ে দাড়ানোর কথা নিজেই জানালেন বরিস । রোববার (২৩ অক্টোবর) রাতে এক বিবৃতির মাধ্যমে এই সিদ্ধান্তের কথা জানিয়েছেন তিনি নিজেই।  বিবৃতিতে বরিস জনসন বলেন সংসদে ঐক্যবদ্ধ দল না থাকলে আপনি কার্যকরভাবে শাসন করতে পারবেন না। যদিও আমি ঋষি এবং পেনি উভয়ের কাছে গেছি  – কারণ আমি আশা করেছিলাম যে আমরা জাতীয় স্বার্থে একত্রীত হতে পারব – দুঃখজনক হলেও সত্যি যে  আমরা একটি  উপায় বের করতে পারিনি।

তাই আমি আর  এবিষয়ে এগুতে চাইনা  তাই দল এবং জাতীয় স্বার্থে  প্রতিদ্বন্দিতা থেকে সরে যাওয়ার সিদ্ধান্ত নেই। তাদের প্রতি আমার সমর্থন এবং সব ধরনের সহযোগীতা থাকবে। আমি বিশ্বাস করি আমার কাছে অনেক কিছু দেওয়ার আছে।  এর ফলে ক্ষমতাসীন দল কনজারভেটিভ পার্টির  নেতা ভারতীয় বংশদ্বোত ও সাবেক অর্থমন্ত্রী ঋষি সুনাকের প্রধানমন্ত্রী হওয়ার সম্ভাবনা এখন নিশ্চিত।

প্রধানমন্ত্রীর পদ থেকে লিজ ট্রাসের পদত্যাগের ঘোষণার পর নতুন নেতা হওয়ার দৌড়ে যে কয়েক জনের নাম উচ্চারিত হচ্ছিল তাদের মধ্যে বরিস জনসন ছিলেন অন্যতম।  তবে রোববার রাতে  এক বিবৃতিতে তিনি বলেন, পার্লামেন্টের আইনপ্রণেতারা তাকে সমর্থন করা শর্তেও তিনি সরে দাঁড়ালেন। আপাতত প্রধানমন্ত্রীর হওয়ার দৌড়ে থাকা ঠিক হবে না বলে মনে করছেন তিনি।

তবে এই নির্বাচন না লড়লেও ২০২৪ সালের সাধারণ নির্বাচনে লড়ার ইঙ্গিত দিয়েছেন বরিস জনসন। তিনি বলেন, আমি বিশ্বাস করি, আগামী ২০২৪ সালের সাধারণ নির্বাচনে কনজারভেটিভ পার্টির  বিজয় এনে দিতে পারব। এদিকে প্রধানমন্ত্রী হওয়ার দৌড়ে সবচেয়ে বেশি এগিয়ে রয়েছেন ঋষি সুনাক।  ক্ষমতাসীন কনজারভেটিভের ১৩৬ জন এমপি তাকে সমর্থন করছেন। এ ছাড়া যারা বরিস জনসনকে সমর্থন করছিলেন তাদের মধ্যে গুরুত্বপূর্ণ কয়েকজন এখন ঋষি সুনাককে সমর্থন করার ঘোষণা দিয়েছেন। ঋষি সুনাক ছাড়াও এই লড়াইয়ে রয়েছেন সাবেক প্রতিরক্ষামন্ত্রী পেনি মরডান্ট। তাকে সমর্থন করেছেন ২৩ এমপি ।

কনজারভেটিভ পার্টির পক্ষ থেকে ঘোষণা করা হয়েছে, ২৮ অক্টোবরের মধ্যে নতুন নেতা নির্বাচিত করা হবে। যিনি এমপিদের ভোটে নির্বাচিত হবেন তিনি হবেন পার্টি প্রধান ও ব্রিটেনের প্রধানমন্ত্রী। বর্তমান পার্লামেন্টে ক্ষমতাসীন কনজারভেটিভ দলের  এমপি রয়েছেন ৩৫৭ জন। তারা নতুন দলনেতা নির্বাচিত করবেন। প্রধানমন্ত্রী হওয়ার লড়াইয়ে নাম লেখানোর জন্য একজন প্রার্থীর পক্ষে অন্তত ১০০ এমপির  সমর্থন প্রয়োজন। এদিকে প্রধানমন্ত্রীর দৌড় থেকে সড়ে দাঁড়ানোর পর বরিস জনসনের প্রশংসা করেছেন ঋষি সুনাক।

এক টুইট বার্তায় তিনি লিখেছেন, ইউরোপীয় ইউনিয়ন থেকে যুক্তরাজ্যের বিচ্ছেদে (ব্রেক্সিট) ও করোনাভাইরাসের টিকা কর্মসূচি বাস্তবায়নে দুর্দান্ত কাজ করেছেন বরিস। ঋসি সুনাক এক টুইট বার্তায় আরো বলেন: “যুক্তরাজ্য একটি মহান দেশ কিন্তু আমরা একটি গভীর অর্থনৈতিক সংকটের মুখোমুখি।”তিনি  আরো বলেন: “আমি আমাদের অর্থনীতি ঠিক করতে চাই, আমাদের দলকে একত্রিত করতে এবং আমাদের দেশের জন্য ভাল কিছূ করতে চাই।”

পাকিস্তানি এবং ভারতীয়  বংশোদদ্বোত কনজারভেটিভ এমপিরা ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী হওয়ার জন্য সুনাককে সমর্থন করছেন। তাদের মধ্যে রয়েছেন সাজিদ জাভিদ, যিনি  ব্রিটিশ সরকারে সাবেক স্বরাষ্ট্র সচিব এবং রাজকোষের চ্যান্সেলর হিসাবে কাজ করেছেন এবং রেহমান চিশতি, যিনি এর আগে জুনিয়র মন্ত্রী ছিলেন। জনসন শিবিরের

আইন প্রণেতারা হলেন প্রীতি প্যাটেল, যিনি পূর্বে স্বরাষ্ট্রসচিব ছিলেন, অলোক শর্মা, যিনি বিগত দুটি যুক্তরাজ্যের সরকারে মন্ত্রিপরিষদ মন্ত্রী ছিলেন এবং শৈলেশ ভারা, যিনি ভারতীয় বংশোদ্ভোত রক্ষণশীল আইন প্রণেতাদের মধ্যে দীর্ঘ দিন যাবত এমপি হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছেন।

উল্লেখ্য গত ২০ অক্টোবর ব্রিটেনে গভীর রাজনৈতিক সংকটের মধ্যে আকস্মিকভাবে প্রধানমন্ত্রীর পদ থেকে পদত্যাগ করেন লিজ ট্রাস। মাত্র ৪৫ দিন প্রধানমন্ত্রীর পদে ছিলেন ট্রাস ।

সামাজিক মিডিয়ায় শেয়ার করুন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরো খবর
Developer By Zorex Zira

Designed by: Sylhet Host BD