1. sm.khakon@gmail.com : bkantho :
সিমরনজিৎ সিং মান-এর কাশ্মীর সফর খালিস্তানী ও কাশ্মীরি সন্ত্রাসীদের একত্রিত করার ‘’আইএসআই’’-এর পরিকল্পনা - বাংলা কণ্ঠ নিউজ
February 6, 2023, 5:52 am

সিমরনজিৎ সিং মান-এর কাশ্মীর সফর খালিস্তানী ও কাশ্মীরি সন্ত্রাসীদের একত্রিত করার ‘’আইএসআই’’-এর পরিকল্পনা

মতিয়ার চৌধুরী
সিমরনজিৎ সিং মান-এর কাশ্মীর সফর খালিস্তানী ও কাশ্মীরি সন্ত্রাসীদের একত্রিত করার ‘’আইএসআই’’-এর পরিকল্পনা

কে-২-কে (কাশ্মীর থেকে খালিস্তান) প্রকল্পের অংশ হিসেবে খালিস্তান সন্ত্রাসবাদের সাথে কাশ্মীর জঙ্গিবাদকে একত্রিত করার আইএসআই-এর স্বপ্ন বাস্তবায়নে সিমরনজিৎ সিং মান-এর   কাশ্মির সফরের পরিকল্পনা করা হয়। গোয়েন্দা সংস্থা গুলোর সতর্কতার কারণে দীর্ঘ দিনের সেই পরিকল্পনা নাৎসাত হয়ে যায়।

১৯৪৭ সালের যুদ্ধে পাকিস্তানের পরাজয়ের পর, মেজর জেনারেল রবার্ট কথোম যিনি একজন ব্রিটিশ সেনা কমান্ডার ছিলেন দেশভাগের পরে পাকিস্তান সেনাবাহিনীতে যোগদান করেছিলেন  তিনি অনুধাবন করতে  পারছিলেন যে একটি প্রচলিত সাধারন যুদ্ধে পাকিস্তান কোনদিনই  ভারতের সাথে যুদ্ধে পারবেনা।

শুরু থেকেই  ভারত বিভিন্ন  ফল্ট লাইন সহ অনেক ক্ষেত্রে শক্তিশালী ছিল, যা সহজেই ভারতের অ্যাকিলিসের হিলে পরিণত হতে পারে। তখন থেকেই তিনি পরিকল্পনা করেছিলেন ভারতকে দুর্বল করতে হলে  অভ্যন্তরীণ কোন্দল নাশকতা এবং বিদ্রোহের মাধ্যমেই ভারতকে দুর্বল করার সুযোগ রয়েছে পাকিস্তানের। সেই চিন্তা থেকেই তিনি ‘’আইএসআই’’ প্রতিষ্ঠা করেন এবং এর মহাপরিচালকের দায়িত্ব নেন।

সেই থেকে, কাউথোমের মস্তিষ্কপ্রসূত প্রক্সি যুদ্ধ এবং অভ্যন্তরীণ নাশকতাকে ভারতের বিরুদ্ধে সবচেয়ে সফল অস্ত্র হিসেবে ব্যবহার করেছে পাকিস্তান। পাকিস্তানের নাশকতার চিহ্ন  ভারতের প্রায় প্রতিটি ফল্ট লাইনে রয়েছে, যেমন, উত্তর-পূর্ব রাজ্যগুলিতে বিদ্রোহ, নকশাল সহিংসতা, কাশ্মীরে ইসলামি সন্ত্রাস, সন্ত্রাসের অর্থায়ন এবং ভারতের অভ্যন্তরে মৌলবাদীকরণ এবং খালিস্তান বিদ্রোহ ইত্যাদি।

খালিস্তান বিদ্রোহের মূলে এটি কে-২-কে (কাশ্মীর থেকে খালিস্তান) প্রকল্পের একটি অংশ হিসেবে কাশ্মীর জঙ্গিবাদকে খালিস্তান সন্ত্রাসবাদের সাথে একত্রিত করার জন্য আইএসআই-এর কৌশলগত স্বপ্ন ছিল। আর সেই স্বপ্ন বাস্তবায়নে শুরু থেকেই  বিভিন্ন ভাবে কাজ করছে ‘’অইএসআই’’।

পাকিস্তান ১৯৮০‘র দশকে পাঞ্জাবে খালিস্তান সন্ত্রাসীদের সমর্থন করেছিল। যাইহোক  ভারত ১৯৯০ এর দশকের শেষের দিকে দেশের অভ্যন্তরে সফলভাবে সন্ত্রাসীদের সকল কর্মকান্ড  গুড়িয়ে দেয়। এর পরেও  খালিস্তান মতাদর্শে বিশ্বাসী  এবং নাশকতাকারীরা দেশের বাইরে বিশেষ করে ইউরোপ, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র এবং কানাডায় সক্রিয় হয়েছে।

’’আইএসআই’’ পশ্চিমা দেশগুলিতে তাদের কার্যকলাপের জন্য সমর্থন এবং সবধরনের সহযোগীতা দিয়ে যাচ্ছে।  গত কয়েক বছর ধরে, খালিস্তান আন্দোলন পশ্চিমা বিশ্বে আবার গতি পেয়েছে, যার ফলস্বরুপ  ইংল্যান্ড, কানাডা এবং মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে  এদের ভারত বিরোধী   ঘৃণামূলক প্রচার প্রচারণা লক্ষ্য করা যায়।

একই সাথে ভারতের অভ্যন্তরে  পাকিস্তান খালিস্তান সন্ত্রাসবাদ এবং কাশ্মীরি সন্ত্রাসী গোষ্ঠীগুলিকে একত্রিত করার জন্য   সর্বাত্মক প্রচেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে।  ‘’আইএসআই’’ পাঞ্জাব ও জম্মু সীমান্ত অঞ্চলে সন্ত্রাসীদের  অস্ত্র  ও নগদ অর্থ দিয়ে সহায়তা করছে।

’’আইএসআই‘র’’  সর্বশেষ পরিকল্পনা  ছিল খালিস্তানপন্থী নেতা সিমরনজিৎ সিং মান-এর প্রস্তাবিত কাশ্মীর সফর, যিনি তার দলের একটি  জম্মু এন্ড কাশ্মির ইউনিটও প্রতিষ্ঠা করেছেন  অর্থাৎ শিরোমণি আকালি দল (অমৃতসর)। ১৭-১৮ অক্টোবর লখনপুর সীমান্ত থেকে তার সফর শুরু হওয়ার কথা ছিল, ডিএম কাঠুয়া মানকে কাশ্মীরে প্রবেশে “জনসাধারণের শান্তি ভঙ্গের  কারণ  দেখিয়ে তা বাতিল করে দেয় স্থানীয় কর্তৃপক্ষ।

যদিও মানকে কাশ্মীরে প্রবেশে নিষেধ করা হয়েছে, তার কাশ্মীর সফরসূচী, এজেন্ডা এবং কয়েকটি গোপন মিটিংয়ের  পরিকল্পনা  আগেই প্রকাশ হয়ে যায়।   এটি শুধু  খালিস্তানি এবং কাশ্মীরি বিচ্ছিন্নতাবাদীদের  জোটকে শক্তিশালী করাই নয়  ভারতীয় জাতীয় নিরাপত্তার জন্য হুমকীও বটে। তার জম্মু ও কাশ্মীর সফরের একটি গোপনীয় সময়সূচী  নির্ধারিত  ছিল  ।

‘’আইএসআই’’- কাশ্মীর এবং খালিস্তানী প্রধান প্রধান  মাষ্টার মাইন্ডদের এই উদ্যোগকে এমনভাবে  এগিয়ে নিয়েছিল অতীতে যেমনটি করেছিল  পাঞ্জাবে খালিস্তান বিদ্রোহীদের । মান-কাশ্মীর সফরে জম্মম্মু ও কাশ্মীরের বিশেষ কয়েকটি গুরদ্বারে সমাগম এবং সভা অন্তর্ভুক্ত ছিল৷ তার সময়সূচী ছিল  নিম্নরূপ:

১৭ অক্টোবর, তিনি লক্ষনপুর সীমান্তে পৌঁছানোর পর  জম্মু অঞ্চলের সাম্বা-কাঠুয়া জেলা, আরএস পুরা এবং গোল গুজারালের গুরুদ্বারগুলিতে কয়েকটি  সভা আয়োজন করার পরিকল্পনা করেছিলেন। ১৮ তারিখে, তার একটি প্রেস কনফারেন্সে ভাষণ দেওয়ার এবং স্থানীয় শিখ প্রতিনিধিদের সাথে দেখা করার কথা ছিল।

এছাড়াও, তিনি জম্মু বার অ্যাসোসিয়েশন, অল পার্টি ইউনাইটেড মোর্চা, ভীম আর্মি ইত্যাদির সদস্যদের সাথে দেখা করার পরিকল্পনা করেছিলেন। ১৮ তারিখ সন্ধ্যায় সব শেষ করে  তার রাত্রিযাপনের  জন্য আখনুর গুরুদ্বার সাহেবের উদ্দেশ্যে রওনা হওয়ার কথা ছিল। ১৯ তারিখে, পুঞ্চের নাংলি সাহিব গুরুদ্বারে শিখ প্রতিনিধিদের সাথে তার বৈঠক নির্ধারিত ছিল।

২০ অক্টোবর মুঘল রোড হয়ে শ্রীনগরে পৌঁছানোর কথা ছিল। সেখানে তিনি প্রথমে শ্রীনগরের বুরজুলায় শহীদ বাংলা সাহেব গুরুদ্বারে যাওয়ার পরিকল্পনা ছিল। তবে তার শ্রীনগরের পরিকল্পনায় আরও চার থেকে পাঁচ দিনের থাকার কথা  ছিল, বিস্তারিত জানা যায়নি গুপকার জোটের নেতাদের সঙ্গে দেখা করার পরিকল্পনা ছিল বলেও জানা গেছে। এছাড়াও, মূল এজেন্ডা ছিল বিচ্ছিন্নতাবাদীদের  সাথে গোপন বৈঠক ।

যদি তাকে জম্মু ও কাশ্মীর ভ্রমণের অনুমতি দেওয়া হত, তবে সম্ভবত তিনি বার অ্যাসোসিয়েশনের (শ্রীনগর) ভারত-বিরোধী সদস্য মিরওয়াইজ উমর ফারুক এবং ইয়াসিন মালিক এবং সৈয়দের পরিবারের সাথে দেখা করতেন। আলী শাহ গিলানি।

তার প্রেস ব্রিফিং এবং মিটিংগুলিতে, তিনি রাজ্যের মর্যাদা, বিশেষ মর্যাদা, বহিরাগতদের ভোটাধিকার, কাশ্মীরের ফল চাষীদের উদ্বেগ, আলতাফ শাহ (গিলানির জামাতা এবং গিলানির জামাতা) এর হেফাজতে মৃত্যুর মতো সংবেদনশীল বিষয়গুলি সম্পর্কে উসকানী দিতেন।

সন্ত্রাসী অর্থায়নের মামলায় অভিযুক্ত এবং পাকিস্তানের সাথে কাশ্মীর সমস্যার শান্তিপূর্ণ সমাধানের জন্য এটি উল্লেখ করা প্রাসঙ্গিক যে সিমরনজিৎ সিং মান একজন বিতর্কিত শিখ ধর্মীয় ও রাজনৈতিক নেতা। তিনি  অমৃত পাল সিংকে সমর্থন করেন, যিনি শিখ ইস্যুতে আক্রমণাত্মক অবস্থান এবং খালিস্তানপন্থী মনোভাবের জন্য গোয়েন্দা সংস্থাগুলির নজরদারিতে রয়েছেন।

তিনি “ওয়ারিস পাঞ্জাব দে” এর নেতা, অভিনেতা-কর্মী দীপ সিদ্ধু দ্বারা তৈরি একটি  প্রেসার গ্রুপ, যিনি দুর্ঘটনায় মারা গেছেন। অমৃত পাল সিং কৃষক আন্দোলনকে সমর্থন  করেন  এবং পাঞ্জাবের একটি বড় আকারের সামাজিক ও রাজনৈতিক পরিবর্তনের কথা ঘোষনা দিয়েছেন। নিহত খালিস্তান নেতা জার্নাইল সিং ভিন্দ্রানওয়ালের গ্রাম রোদে তার ঘন ঘন যাতায়াত গোয়েন্দা সংস্থাকে শঙ্কিত করে তুলেছে। তার দস্তরবন্দীতে (পাগড়ি বাঁধার অনুষ্ঠানে) খালিস্তানপন্থী স্লোগান দেওয়া ইত্যাদি।

”আইএসআই’’ পাঞ্জাবের রাজনৈতিক ও ধর্মীয় শূন্যতা পূরণ করার চেষ্টা করছে, অমৃত পাল সিং নিজেকে একজন রাজনৈতিক ও ধর্মীয় নেতা হিসেবে পরিচিত।  তার উত্থান জার্নাইল সিং ভিন্দ্রানওয়ালের উত্থানের সাথে সমান্তরাল রয়েছে।

তার উঠা-নামা এবং ধারনাও একজন জার্নাইল সিং ভিন্দ্রানওয়ালের কথা মনে করিয়ে দেয়। অমৃত পাল সিং বলেছেন যে মাদকের হুমকি, জলের সংকট, ইউপি এবং বিহার থেকে পাঞ্জাবে লোকেদের স্থানান্তর, পপ সংস্কৃতির উত্থান শিখদের পাগড়ি পরিত্যাগ করতে উৎসাহিত  করে, পাঞ্জাবি ভাষার অবমূল্যায়ন এবং রাজনৈতিক ভিন্নমতাবলম্বীদের গ্রেপ্তার ‘নিরবতার দিকে নিয়ে যাচ্ছে। শিখদের গণহত্যা। তার আক্রমণাত্মক এবং মেরুকরণমূলক বক্তব্য শিখ এবং অন্যান্য সম্প্রদায়ের মধ্যে, বিশেষ করে হিন্দুদের মধ্যে বিভেদ সৃষ্টি করছে।

উল্লেখ যে, ওয়ারিস পাঞ্জাব ডি-এর নেতৃত্ব নেওয়ার আগে অমৃত পাল সিং দুবাইতে ছিলেন।  গোয়েন্দা সূত্রের মতে, আরব বিশ্বের ’’আইএসআই’’ স্টেশন প্রধান এর সাথে তার গভীর সম্পর্ক রয়েছে। ইউরোপের শিখ প্রবাসী খালিস্তানি মৌলবাদীদের সাথেও তার ঘনিষ্ঠ সম্পর্ক রয়েছে। অতি সম্প্রতি, বহু প্রভাবশালী শিখ রাজনৈতিক ও ধর্মীয় নেতা অমৃত পাল সিংকে ভারতীয় কারাগার থেকে খালিস্তানিদের মুক্তির জন্য ‘শিখ বান্দি’ নামে একটি আন্দোলন শুরু করার জন্য সমর্থন দিচ্ছেন।

অভিযোগ, রয়েছে মান ও তাঁর দল অমৃত পাল সিংয়ের কাজে সহায়তা করছে। শীঘ্রই, অমৃত পাল সিং জম্মু অঞ্চলে একটি সমাগম (সভা) আয়োজন করতে পারেন। ভারতীয় জাতীয় নিরাপত্তার জন্য এটা সত্যিই বড় উদ্বেগের বিষয়। যদিও  আপাতত তার  সফর বাতিল করা হয়েছে  গোয়েন্দা সংস্থাগুলি খালিস্তানি এবং কাশ্মীরি বিচ্ছিন্নতাবাদীদের একত্রিত করার এই ধরনের প্রচেষ্টা এবং অমৃত পাল সিংয়ের কার্যকলাপের উপর  নজর রাখার পরামর্শ দিয়েছে।

সামাজিক মিডিয়ায় শেয়ার করুন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরো খবর
Developer By Zorex Zira

Designed by: Sylhet Host BD