1. sm.khakon@gmail.com : bkantho :
ঐতিহাসিক মুজিবনগর দিবসের ৫১তম বার্ষিকী উপলক্ষে বাংলাদেশ হাইকমিশনে লন্ডনের স্মারক অনুষ্ঠান - বাংলা কণ্ঠ নিউজ
January 27, 2023, 2:54 pm

ঐতিহাসিক মুজিবনগর দিবসের ৫১তম বার্ষিকী উপলক্ষে বাংলাদেশ হাইকমিশনে লন্ডনের স্মারক অনুষ্ঠান

মতিয়ার চৌধুরী, লন্ডন
  • বুধবার, এপ্রিল ২০, ২০২২
ঐতিহাসিক মুজিবনগর দিবসের ৫১তম বার্ষিকী উপলক্ষে বাংলাদেশ হাইকমিশনে লন্ডনের স্মারক অনুষ্ঠান

ঐতিহাসিক মুজিবনগর দিবসের ৫১তম বার্ষিকী উপলক্ষে বাংলাদেশ হাইকমিশনে লন্ডনের স্মারক অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রী ডাঃ হাছান মাহমুদ মুজিবনগর সরকারের ভূমিকা সম্পর্কে বৃহত্তর সচেতনতা ও ডকুমেন্টেশন তৈরির আহ্বান জানিয়েছেন। প্রবাসী বাংলাদেশিদের নতুন প্রজন্মের মধ্যে আমাদের গৌরবময় মুক্তিযুদ্ধ।

তরুণ প্রজন্মের কাছে ইতিহাস যাতে বিকৃত না হয় তা নিশ্চিত করতে বিশেষ করে দীর্ঘ স্বাধীনতা সংগ্রাম ও বাংলাদেশের স্বাধীনতার সময় জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের অবিসংবাদিত নেতৃত্ব এবং সেই সাথে জাতীয় চার নেতার ঐতিহাসিক ভূমিকার বিষয়ে, এবং বাংলাদেশকে স্বাধীন করার জন্য মুজিবনগর সরকার, মন্ত্রী বলেন, তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রণালয় জাতীয় ও আন্তর্জাতিক অভিজ্ঞতামূলক প্রমাণের ভিত্তিতে আমাদের মুক্তিযুদ্ধের ওপর ইংরেজিতে তথ্যচিত্র তৈরি করবে।

সেই পরিপ্রেক্ষিতে মন্ত্রী ব্রিটিশ-বাংলাদেশিদের নতুন প্রজন্মের কাছে বিতরণের জন্য ঐতিহাসিক মুজিবনগর দিবসের তাৎপর্যসহ মুক্তিযুদ্ধের ওপর লন্ডন হাইকমিশন কর্তৃক ইংরেজিতে পুস্তিকা প্রকাশের পরামর্শ দেন।

“আমাদের মুক্তিযুদ্ধের বীরাঙ্গনাদের আত্মত্যাগের প্রতি শ্রদ্ধা জানাতে এবং বঙ্গবন্ধুর সোনার বাংলার রূপকল্প বাস্তবায়নে তার কন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বাংলাদেশকে একটি সমৃদ্ধ, আত্মনির্ভরশীল ও আত্মমর্যাদাশীল জাতিতে রূপান্তরের লক্ষ্যে নিরলস প্রচেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন।” অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে বীর মুক্তিযোদ্ধা ও মুজিবনগর সরকারের প্রবীণ সৈনিক ড. তৌফিক-ই-ইলাহী চৌধুরী বীর বিক্রম জাতিকে স্মরণ করিয়ে দেন যে মুজিবনগর সরকার অস্থায়ী বা অন্তর্বর্তী সরকার নয়।

কিন্তু 10 এপ্রিল 1971 সালে গৃহীত ‘স্বাধীনতার ঘোষণা’ অনুযায়ী স্বাধীন ও সার্বভৌম গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশের প্রথম সাংবিধানিক সরকার। মন্ত্রী, তরুণ প্রজন্মকে বাংলাদেশের ‘স্বাধীনতার ঘোষণা’ ভালোভাবে অধ্যয়ন করতে উৎসাহিত করেন, যা ছিল ক্ষুদ্র-সংবিধান এবং পরিচালনার নির্দেশিকা।

১৯৭১ সালের মুক্তিযুদ্ধ ও যুদ্ধকালীন সরকার। স্বাগত বক্তব্যে, যুক্তরাজ্যে নিযুক্ত বাংলাদেশের হাইকমিশনার সাইদা মুনা তাসনিম জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু এবং বঙ্গবন্ধুর পক্ষে স্বাধীন বাংলাদেশের প্রথম সরকারে শপথ গ্রহণকারী জাতীয় চার নেতার প্রতি গভীর শ্রদ্ধা নিবেদন করেন এবং তাকে রাষ্ট্রপতি পদে মনোনীত করেন। জাতির পিতার পর মুজিবনগরের স্থান, বঙ্গবন্ধুর কারাবাস থেকে মুক্তির জন্য আন্তর্জাতিকভাবে প্রচারণা চালিয়ে এবং চূড়ান্ত বিজয়ের জন্য মুক্তিযুদ্ধ পরিচালনা করে দক্ষতার সাথে।

এ প্রসঙ্গে হাইকমিশনার বীর মুক্তিযোদ্ধা, শহীদ এবং একাত্তরের মুক্তিযুদ্ধের ভুক্তভোগী এবং মুজিবনগর সরকারকে সমর্থনকারী বিদেশী সরকার এবং মুক্তিযুদ্ধের সময় ভারতে বাঙালি শরণার্থী শিবির পরিদর্শনকারীদের প্রতিও গভীর কৃতজ্ঞতা জানান, যার মধ্যে সাবেক প্রধানমন্ত্রী ড. ভারতের মন্ত্রী ইন্দিরা গান্ধী এবং নেতৃস্থানীয় ব্রিটিশ রাজনীতিবিদ যেমন মাইকেল বার্নস, এমপি, ব্রুস ডগলাস-ম্যান, এমপি, টবি জেসেল, এমপি, আর্থার বটমলি, এমপি, রেজিনাল প্রেন্টিস, এমপি, জেমস রামসডেন, এমপি এবং পিটার শোর, এমপি।

লন্ডন হাইকমিশনের পক্ষ থেকে হাইকমিশনার ঐতিহাসিক মুজিবনগর দিবসে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার গণতান্ত্রিক, প্রগতিশীল, ধর্মনিরপেক্ষ ও সমৃদ্ধ বাংলাদেশের স্বপ্ন ও আকাঙ্ক্ষাকে সমর্থন করার জন্য 10 এপ্রিল 1971 সালে তৈরি করা প্রজাতন্ত্রের জনসেবক হিসেবে তার শপথ পুনর্নিশ্চিত করেন।

বিশেষ অতিথি হিসেবে বীর মুক্তিযোদ্ধা লে. কর্নেল (অব.) কাজী সাজ্জাদ আলী জহির, বীরপ্রতীক ও পদ্মশ্রী বলেন, মুজিবনগর সরকার শুধু ‘স্বাধীনতার ঘোষণা’ গ্রহণ করেনি এবং মুক্তিযুদ্ধকে চূড়ান্ত বিজয়ে পরিচালনা করেনি, তবে এটি বাংলাদেশে ১৯৭১ সালের গণহত্যার নথিভুক্ত করার ক্ষেত্রে একটি ঐতিহাসিক পদক্ষেপও নিয়েছে, যা ১৯৭১ সালের বাঙালি গণহত্যার আন্তর্জাতিক স্বীকৃতির প্রচারে ব্যবহার করা যেতে পারে। যুদ্ধের প্রবীণ লক্ষ লক্ষ সাধারণ মানুষকে বিশেষ করে নারীদের প্রতি শ্রদ্ধা নিবেদন করেছেন যারা মুক্তিযোদ্ধাদের সমর্থন ও সেবা করার সময় তাদের জীবন ও সম্মান বিসর্জন দিয়েছেন। অনুষ্ঠানে বক্তৃতা করে, বিশিষ্ট সাংস্কৃতিক ও নাট্য ব্যক্তিত্ব রামেন্দু মজুমদারের ভূমিকার যথাযথ ডকুমেন্টেশনের আহ্বান জানান।

মুক্তিযুদ্ধের সময় স্বাধীন বাংলা বেতার কেন্দ্র, এবং আজকের বাংলাদেশে একটি শক্তিশালী বাঙালি সাংস্কৃতিক আন্দোলনের পুনরুজ্জীবনের আহ্বান জানিয়েছিল। প্রবীণ মুক্তিযোদ্ধা ও ‘জয় বাংলা’ সাপ্তাহিক ও ‘স্বাধীন বাংলা বেতার কেন্দ্র’-এর যুদ্ধ সংবাদদাতা হারুন হাবীবকে বিশেষ শ্রদ্ধা জানিয়েছেন। সমস্ত জাতীয় এবং আন্তর্জাতিক মিডিয়া বিশেষ করে ভারতের নেতৃস্থানীয় সংবাদপত্র এবং রেডিও যেমন দূরদর্শন, আস্কাহবাণী এবং আনন্দবাজার পত্রিকা, এবং টাইমস এবং ওয়াশিংটন পোস্ট যারা ১৯৭১ সালের যুদ্ধ এবং পাকিস্তানি হানাদার বাহিনীর দ্বারা বাংলাদেশে নৃশংসতা কভার করেছে।

জাতীয় ও আন্তর্জাতিক আইনের প্রতিফলন। মুজিবনগর সরকারের বিভিন্ন দিক, বিশ্ববিদ্যালয়ের আইন বিভাগের সাবেক অধ্যাপক ড ঢাকা ডক্টর সেলিম মাহমুদ বলেন, ‘স্বাধীনতার ঘোষণা’ এবং মুজিবনগর সরকারের শপথ গ্রহণ ছিল বঙ্গবন্ধু কর্তৃক ১৯৭১ সালের ২৬ মার্চ স্বাধীনতার ঘোষণার আইনী উপকরণ যা বাংলাদেশ ১৯৭২ সালের সংবিধানের ৬ষ্ঠ তফসিলে সংযুক্ত করা হয়েছে।অনুষ্ঠানে আরও বক্তব্য রাখেন যুক্তরাজ্যে বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধের প্রবাসী স্বাধীনতা আন্দোলনের স্টুডেন্ট অ্যাকশন কমিটির সদস্য ও প্রবাসী মুক্তিযোদ্ধা সুলতান মাহমুদ শরীফ এবং প্রবাসী ব্রিটিশ-বাংলাদেশী কমিউনিটি ব্যক্তিত্ব সৈয়দ সাজিদুর রহমান ফারুক। ভার্চুয়াল অনুষ্ঠানে মুজিবনগর সরকারের শপথ নিয়ে একটি সংক্ষিপ্ত তথ্যচিত্র দেখানো হয়, এতে যুক্তরাজ্য ও আয়ারল্যান্ডে বসবাসকারী বিপুল সংখ্যক প্রবাসী বাংলাদেশি অংশগ্রহণ করেন।

সামাজিক মিডিয়ায় শেয়ার করুন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরো খবর
Developer By Zorex Zira

Designed by: Sylhet Host BD