1. sm.khakon@gmail.com : bkantho :
দুযকের আগুন থেকে রক্ষা পেতে হলে সন্তানদেরকে মক্তব ও মসজিদে পাঠান : জুমার খুৎবায় হাফেজ আমিনুল হক - বাংলা কণ্ঠ নিউজ
শনিবার, ২০ জুলাই ২০২৪, ১০:০৪ অপরাহ্ন

দুযকের আগুন থেকে রক্ষা পেতে হলে সন্তানদেরকে মক্তব ও মসজিদে পাঠান : জুমার খুৎবায় হাফেজ আমিনুল হক

এম এ মজিদ
  • শুক্রবার, ৩ মে, ২০২৪
  • ২৭ বার পড়া হয়েছে
আগুয়া গ্রামের গজব নাজিল হয়েছে : জুমার খুৎবায় সৈয়দ মোবাশ্বির আহমেদ

হবিগঞ্জ শহরের মোহনপুর ফায়যানে মদিনা মাদ্রাসা মসজিদে জুমার খুৎবায় হাফেজ আমিনুল হক বলেছেন- সন্তানদেরকে সম্পদে পরিনত করতে হলে মক্তব ও মসজিদে পাঠাতে হবে। দুযকের আগুন থেকে রক্ষা পেতে হলে এর বিকল্প নেই। সন্তানরা মক্তবমুখী হলে কোরআন হাদিস আদব শিক্ষা পাবে, মসজিদ মুখী হলে নামাজী হবে। মক্তব সিস্টেম প্রায় উঠে গেছে। এটা খুব খারাপ দৃষ্টান্ত। শিশুরা মসজিদে আসবে, দুষ্টামি করবে, তা সহ্য করতে হবে, দুষ্টামী করতে করতে এই শিশুটিই মসজিদের প্রথম কাতারের মুসল্লী হবে।

শিশুরা মসজিদে আসলে ধমক নয়, আদর দিয়ে বরণ করতে হবে, তবেই একটি নামাজী সমাজ গড়ে উঠবে। তিনি বলেন- এক মুসলমানের হাত দ্বারা, কথা দ্বারা, আচরণ দ্বারা আরেক মুসলমানকে কষ্ট দেয়া যাবে না। মুসলমানদের নিজেদের মধ্যে বিবেধ বিরোধের কারণে অমুসলিমরা আমাদের মাথার উপর চেপে বসে আছে। পৃথিবীর পূর্ব প্রান্তের এক মুসলমান আঘাত প্রাপ্ত হলে পৃথিবীর পশ্চিম প্রান্তে থাকা মুসলমানের কষ্ট পাওয়া ঈমানের অংশ। আজকে ফিলিস্তিনের মুসলমানরা ইহুদিদের দ্বারা আঘাত প্রাপ্ত হচ্ছে, শিশুরা শহীদ হচ্ছে, বাড়িঘর ঘুরিয়ে দিচ্ছে, একজন মুসলমান হিসাবে আমাদের মনে তেমন কোনো কষ্ট হচ্ছে না।

বুঝতে হবে আমরা বংশানক্রমিক মুসলমান কিন্তু প্রকৃত মুসলমান হতে পারিনি। হাফেজ আমিনুল হক বলেন- বীরের জাতি মুসলমান আজ বিড়ালের জাতি মুসলমানে পরিনত হয়েছে। আমাদের মধ্যে কোরআন শিক্ষা নেই, হাদিস শিক্ষা নেই, কোরআন হাদিসের জজবা নেই। হাফিজিয়া মাদ্রাসার ছাত্রদেরকে বেশি বেশি মহব্বত করতে হবে। তাদেরকে মহব্বত করার অর্থ হল পবিত্র কোরআনকে মহব্বত করা।

কারণ তাদের বুকে আল্লাহর ত্রিশ পারা পবিত্র কোরআন রয়েছে। অনেকে অভিযোগ করেন- হাফিজিয়া মাদ্রাসার ছাত্ররা অধিক দুষ্ট। হাফিজিয়া মাদ্রাসার ছাত্র ২৪ ঘন্টা মাদ্রাসায় বন্দি থাকে, তারাও অন্য দশটি ছেলের মতো হুইহুল্লোড় করতে চায়, দৌড়াদৌড়ি করতে চায়। দিনের বেশির ভাগ সময় তারা সেই আনন্দ উল্লাস থেকে বঞ্চিত থাকে। সামান্য সময়ের জন্য ছুটি পেলে মাদ্রাসার ছাত্ররা আনন্দে কিছুটা দুষ্টামী করবে তা স্বাভাবিক। আপনি যদি বাচ্চাদেরকে মহব্বত না করেন, তাহলে বাচ্চাদের কাছ থেকে শ্রদ্ধা পেতে পারেন না।

এটা আমার কথা নয়। রাসুল (সা) নিজেই প্রথমে বলেছেন- ছোটদেরকে মায়া করার জন্য, পরে বলেছেন- ছোটরা যেন বড়দেরকে শ্রদ্ধা করে। আগে মহব্বত পরে শ্রদ্ধা। বিষয়গুলো অনুধাবন করতে হবে। প্রায় ৩২ মিনিটের জুমার খুৎবায় হাফেজ আমিনুল হক মসজিদ মাদ্রাসায় বেশি বেশি দান খয়রাতের মাধ্যমে নিজের ইহকালীন ও পরকালীন জীবন সুন্দর করার আহবান জানান।

লেখক.

এম এ মজিদ, আইনজীবী ও সংবাদকর্মী,
হবিগঞ্জ।
০১৭১১-৭৮২২৩২

সামাজিক মিডিয়ায় শেয়ার করুন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরো খবর
Developer By Zorex Zira

Designed by: Sylhet Host BD