ভারতের মন্ত্রিসভায় রদবদল, প্রতিরক্ষা নারীর হাতে

৫৮ বছর বয়সী নির্মলা সীতারামন আগের দফা বাণিজ্য ও শিল্প বিষয়ক প্রতিমন্ত্রীর দায়িত্ব পালন করেছেন। রোববার তাকে পূর্ণ মন্ত্রীর শপথ পড়ান প্রেসিডেন্ট রামনাথ কোবিন্দ।

এর আগে প্রধানমন্ত্রী থাকা অবস্থায় ইন্দিরা গান্ধী তার হাতে প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয় রেখেছিলেন।

মোদীর মন্ত্রিসভায় তৃতীয় দফা রদবদলে আরও তিন প্রতিমন্ত্রী পূর্ণ মন্ত্রীর দায়িত্ব পেয়েছেন বলে জানিয়েছে এনডিটিভি।

আগের বিদ্যুৎ প্রতিমন্ত্রী পীযূষ গয়াল পেয়েছেন রেলওয়ের দায়িত্ব। জ্বালানি প্রতিমন্ত্রী থাকা ধর্মেন্দ্র প্রধান পেয়েছেন দক্ষতা উন্নয়ন বিষয়ক মন্ত্রণালয়। সংসদ বিষয়ক প্রতিমন্ত্রী মুখতার আব্বাস নাকভিকেও পূর্ণ মন্ত্রীর দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে।

রদবদলের কারণে মন্ত্রিসভার মোট সদস্যসংখ্যা দাঁড়িয়েছে ৭৬-এ; নতুন নয়জনের স্থান হয়েছে, পদমর্যাদা বেড়েছে চারজনের।

নতুন দায়িত্ব পাওয়া নয় প্রতিমন্ত্রী হলেন- সাবেক পররাষ্ট্র কর্মকর্তা হারদিপ পুরি, সাবেক আইএস কর্মকর্তা কে জে আল্ফোন, উত্তরাখন্ডের এমপি অনন্তকুমার হেগড়ে, সাবেক স্বরাষ্ট্র সচিব ও আরাহ-র এমপি আর কে সিং, যোধপুরের এমপি গজেন্দ্র সিং, মুম্বাইয়ের পুলিশ কমিশনার ও বাঘপতের এমপি সত্য পাল সিং, উত্তরপ্রদেশের রাজ্যসভার সদস্য শিবপ্রতাপ শুকলা, বক্সারের এমপি অশ্বিনি চৌবে এবং তিকামগড়ের এমপি ভিরেন্দ্র কুমার।

নতুন এ রদবদলের কারণে আগে প্রতিরক্ষা মন্ত্রীর অতিরিক্ত দায়িত্ব পালন করা অরুন জেটলিকে তার পদ ছাড়তে হবে। তিনি এখন কেবলমাত্র অর্থ মন্ত্রণালয় দেখবেন।

দায়িত্ব ছাড়লেও রোববার রাতে জাপানে হতে যাওয়া আন্তর্জাতিক বৈঠকে জেটলি প্রতিরক্ষা মন্ত্রী হিসেবেই ভারতের প্রতিনিধিত্ব করবেন।

প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়ের দায়িত্ব পাওয়ায় সীতারামন এখন নিরাপত্তা বিষয়ক কেবিনেটের সদস্য হলেন, যেখানে মোদি ছাড়াও থাকবেন রাজনাথ সিং, সুষমা স্বরাজ ও অরুন জেটলি।

রেলওয়ে মন্ত্রণালয় ছেড়ে বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের দায়িত্ব নিয়েছেন সুরেশ প্রভু।

পানি সম্পদ, নদী উন্নয়ন ও গঙ্গা পুনরুজ্জীবন মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত দায়িত্ব পেয়েছেন নিতিন গড়কারি।

উমা ভারতীকে পানিসম্পদ মন্ত্রণালয় থেকে সরিয়ে পানি ও পয়ঃনিষ্কাশন মন্ত্রণালয়ের দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে।

ব্রিকস সম্মেলনে যোগ দিতে চীন যাওয়ার আগে আগে মোদি তার মন্ত্রিসভায় এই পরিবর্তন আনলেন। রোববার সকালে তিনি এবং বিজেপিপ্রধান অমিত শাহ নতুন মন্ত্রীদের সঙ্গে প্রধানমন্ত্রীর বাসভবনে দেখা করেন বলে জানিয়েছে এনডিটিভি।

টেকনোক্রেট হিসেবে নেয়া হারদিপ পুরি ও কে জে আল্ফোনকে নগর ও বাসস্থান মন্ত্রণালয় এবং পর্যটন বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে।

আর কে সিং এবং রাজ্যবর্ধন সিং রাঠোর পেয়েছেন যথাক্রমে বিদ্যুৎ এবং ক্রিড়া বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী হয়েছেন।

শিব প্রতাপ শুকলা হয়েছেন অর্থ প্রতিমন্ত্রী; অশ্বিনি চৌবে ও ভিরেন্দ্র কুমার পেয়েছেন স্বাস্থ্য ও নারী এবং শিশু উন্নয়ন বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের দায়িত্ব।

দক্ষতা উন্নয়ন বিষয়ক মন্ত্রণালয় দেওয়া হয়েছে অনন্তকুমার হেগেড়েকে।

নতুন ও পদোন্নতি পাওয়া মন্ত্রীদের অভিনন্দন জানিয়ে টুইট করেছেন প্রধানমন্ত্রী মোদি।

এনডিটিভি বলছে, গত মাসে ভারতের স্বাধীনতা দিবসে দেওয়া ভাষণে প্রধানমন্ত্রী যে ‘নতুন ভারতের’ কথা বলেছিলেন তাতেই মন্ত্রীসভায় রদবদলের ইঙ্গিত ছিল। এরপরই রোববার নতুন মন্ত্রীরা শপথ নেন।

মন্ত্রীসভায় স্থান পাওয়া নতুনদের মধ্যে চারজন সরকারের সাবেক কর্মকর্তা ছিলেন।

টাইমস অব ইন্ডিয়া বলছে, নতুন মন্ত্রীদের মধ্যে তিনজন ব্রাহ্মণ, দুইজন রাজপুত, একজন দলিত, একজন জাঠ, একজন করে খ্রিস্টান ও শিখ থাকায় জাতপাতেরও ভালোই সংমিশ্রন ঘটিয়েছেন মোদি।

আল্ফোন ও পুরিকে মন্ত্রিসভায় নিয়ে আসার পেছনে সংখ্যালঘুদের তুষ্ট করার পাশাপাশি কেরালায় নজর দেওয়ার ইঙ্গিত দিয়েছে বিজেপি।

কর্নাটক এবং মধ্যপ্রদেশের নির্বাচনকে সামনে রেখে হেগড়ে এবং ভিরেন্দ্র ‍কুমারকে প্রতিমন্ত্রী করা হয়েছে বলে ধারণা করছে টাইমস অব ইন্ডিয়া।

তবে গুজরাট থেকে কাউকে বেছে নেওয়া হয়নি; বিজেপির ধারণা, মোদি ক্যারিশমা এমনিতেই উৎরানো যাবে এই রাজ্যের বিধানসভা।

শপথগ্রহণ অনুষ্ঠানে বিজেপিঘনিষ্ঠ শিবসেনার অনুপস্থিতি নানান প্রশ্নের জন্ম দিয়েছে; নীতিশ কুমারের জনতা দলেরও (ইউনাইটেড) কেউ উপস্থিত হননি। দেখা মেলেনি বারানসিতে অনুষ্ঠানে যোগ দিতে যাওয়া উমা ভারতীরও।

print

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *