বেরোবিতে সাংবাদিক নির্যাতনকারী ছাত্রলীগ নেতাদের গ্রেফতারে আল্টিমেটাম

বেগম রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের শহীদ মুখতার এলাহী হলে বরাদ্দ পাওয়া সিটে উঠতে যাওয়ার ‘অপরাধে’ দুই সাংবাদিককে নির্যাতনকারী ছাত্রলীগ নেতাদের গ্রেফতারের দাবিতে ৭২ ঘন্টার আল্টিমেটাম দিয়েছে রংপুরে সাংবাদিকরা। বৃহস্পতিবার দুপুরে রংপুর প্রেসক্লাবের সামনে মানবন্ধন থেকে এই আল্টিমেটাম দিয়ে বলা হয় দাবি মানা না হলে পুলিশ কমিশনারের কার্যালয়ের সামনে অবস্থান ধর্মঘট করবেন তারা।

রংপুরের কর্মরত সাংবাদিক সমাজের ব্যানারে বেলা সাড়ে ১১ টায় দাবি আদায়ে সাংবাদিকরা একটি বিক্ষোভ মিছিল করেন নগরীতে। পরে প্রেসক্লাবের সামনে মানববন্ধন ও সমাবেশে করেন তারা। একুশে টেলিভিশন, দৈনিক সংবাদ ও বাংলা ট্রিবিউনের রংপুর বিভাগীয় প্রতিনিধি লিয়াকত আলী বাদলের সভাপতিত্বে এসময় আরও বক্তব্য রাখেন সিনিয়র সাংবাদিক দ্যা ইন্ডিপেন্ডেন্টের আব্দুস সাহেদ মন্টু, রংপুর প্রেসক্লাব সাংধারণ সম্পাদক আব্দুর রশিদ বাবু, বৈশাখী টেলিভিশনের আফতাব হোসেন, চ্যানেল টুয়েন্টিফোরের জুয়েল আহমেদ, ডিবিসির নাজমুল ইসলাম নিশাত, ভিডিও জার্নালিষ্ট এসোসিয়েশন সভাপতি সুমন, বায়ান্নোর আলোর রেজাউল করিম জীবন প্রমুখ। মানববন্ধনে রংপুর প্রেসক্লাব, রিপোর্টার্স ক্লাব, সাংবাদিক ইউনিয়ন, টেলিভিশন সাংবাদিক ফোরাম, ভিডিও জার্নালিষ্ট এসোসিয়েশন, বাংলাদেশ ফটো জার্নালিষ্ট এসোসিয়েশনের নেতৃবৃন্দম সদস্যসহ রংপুরে কর্মরত শতাধিক গণমাধ্যম কর্মী অংশ নেন।

এসময় লিয়াকত আলী বাদল ঘোষণা দেন, রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয়ে ছাত্রলীগ সাংবাদিকদের প্রায়ই মারধোর করছে। এর আগে যুগান্তরের প্রতিনিধিকে মারধর করা হয়েছে। এবার নিজেদের সিটে উঠতে গিয়ে দৈনিক সংবাদ ও বাংলাদেশ প্রতিদিনের প্রতিনিধিকে মারধর করেছে। মারধরকারী ছাত্রলীগের সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক মাহমুদুল হাসান জয় ও কর্মী রাসেলকে ৭২ ঘন্টার মধ্যে গ্রেফতার করতে হবে। তা না হলে রোববার মহানগর পুলিশ কমিশনারের কার্যালয়ের সামনে অবস্থান ধর্মঘট করবেন সাংবাদিকরা। এসময় তিনি রংপুরে কর্মরত সকল সাংবাদিকের নিরাপত্বা নিশ্চিতের দাবি জানান বক্তারা।

প্রসঙ্গত গত মঙ্গলবার বিকেলে শহীদ মুখতার এলাহী হলে নিজেদের নামে বরাদ্দ হওয়া সিটে উঠতে যায় দৈনিক সংবাদের প্রতিনিধি ও সাংবাদিক সমিতির কোষাধ্যক্ষ আল আমীন হোসেন এবং বাংলাদেশ প্রতিদিনের বেরোবি প্রতিনিধি ও সমিতির যুগ্ন সম্পাদক সৌম্য সরকার। এ সময় সিটে উঠতে না দিয়ে উল্টো তাদের বেধড়ক মারপিট করে ছাত্রলীগের সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক মাহামুদুল হাসান জয় ও কর্মী রাসেল।

Print Friendly, PDF & Email

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *