1. sm.khakon@gmail.com : bkantho :
মুমিনের মধ্যে শুকরিয়া আদায় ধৈর্য্য ধারণ ও ত্বাকওয়া থাকতেই হবে ॥ মুফতি শাকিউল ইসলাম - বাংলা কণ্ঠ নিউজ
রবিবার, ১৬ জুন ২০২৪, ০৮:৪৭ অপরাহ্ন

মুমিনের মধ্যে শুকরিয়া আদায় ধৈর্য্য ধারণ ও ত্বাকওয়া থাকতেই হবে ॥ মুফতি শাকিউল ইসলাম

এম এ মজিদ, হবিগঞ্জ
  • শনিবার, ৬ আগস্ট, ২০২২
  • ৬৪ বার পড়া হয়েছে
আগুয়া গ্রামের গজব নাজিল হয়েছে : জুমার খুৎবায় সৈয়দ মোবাশ্বির আহমেদ

হবিগঞ্জ সদর উপজেলার ২নং রিচি ইউনিয়নের ছোট বহুলা দারুল জান্নাহ জামে মসজিদে ৫ আগষ্ট শুক্রবার জুমার খুৎবায় মুফতি শাকিউল ইসলাম বলেছেন- একজন মুমিনের মধ্যে শুকরিয়া আদায়, যে কোনো পরিস্থিতিতে সবর করা ধৈর্য্য ধারন করা এবং আল্লাহ ভীতি বা ত্বাকওয়ার মতো ৩টি গুন থাকতেই হবে। এই ৩টি গুন ছাড়া কেউ পুরোপুরি মুমিন হতে পারবে না।

আল্লাহর অগনিত নেয়ামত আমরা ভোগ করছি, সেগুলোর জন্য প্রতিনিয়ত শুকরিয়া আদায় করতে হবে, আল্লাহর নেয়ামতের কথা স্মরণ হলেই আলহামদুল্লিাহ বলতে হবে। বেশি বেশি আলহামদুলিল্লাহ বললে আল্লাহ আরও ৩টি নেয়ামত বাড়িয়ে দেন। যে ব্যক্তি বেশি বেশি আলহামদুলিল্লাহ বলবে, তার জন্য আল্লাহ হালাল রুজির ব্যবস্থা করে দেবেন, তার জন্য একজন সৎ স্ত্রীর/সৎ স্বামীর ব্যবস্থা করে দেবেন, তৃতীয়ত সেই ব্যক্তি যে খাবার খাবে তা সহজেই হজম হয়ে যাবে। আলহামদুল্লিহ পড়নেওয়ালা ব্যক্তির রাতে দ্রুত ঘুম চলে আসবে। তিনি বলেন- ধৈর্য্যধারণ আমাদের কাছ থেকে এক ধরনের উঠেই যাচ্ছে।

অথচ আল্লাহ পবিত্র কোরআনে অসংখ্যবার বলেছেন, ইন্নাল্লাহা মাআচ্ছাবিরিন, ইছবিরু, ইত্যাদি। যেখানে আল্লাহ নিজেই বলেছেন- নিশ্চয়ই আমি ধৈর্য্যশীলদের সাথে আছি, সেখানে আমরা অধৈর্য্য হয়ে যাই প্রতিনিয়ত। খারাপ অবস্থায় ধৈর্য্য ধারণ করতে হবে। বিপদে আপদে ধৈর্য্যধারণ করতে হবে। রাসুল সাঃ বলেছেন- তোমরা যদি কোনো মুসিবতে পতিত হও, তাৎক্ষনিক নামাজে দাড়িয়ে যাও, নামাজের মাধ্যমে আল্লাহর সাহায্য চাও, রাসুল সাঃ জীবনী, সাহাবায়ে কেরামগনের আমল, পূর্বেকার নবী রাসুল সাঃ গনের জীবনী থেকে এটা স্পষ্ট যে, যখনই কোনো বিপদ এসেছে তখনই তারা নামাজে দাড়িয়ে আল্লাহর সাহায্য কামনা করেছেন, আল্লাহর সাহায্য এসেছেও।

এক সাহাবী সফরে গিয়েছেন, ইতিমধ্যে তার কাছে সংবাদ আসল তার সন্তান মৃত্যুবরণ করেছেন, সঙ্গে সঙ্গে তিনি সওয়ার থেকে নেমে ২ রাকায়াত নামাজ আদায় করলেন, সংবাদদাতা জানতে চেয়েছেন, আপনার সন্তান মারা গেছেন, আপনি তো দ্রুত বাড়ির দিকে যাওয়ার কথা, তা না করে আপনি নামাজ পড়লেন? সাহাবী জবাব দিলেন- আল্লাহ ভালবেসে আমার সন্তানকে নিয়ে গেছেন, তার জন্য কি আপনি শুকরিয়া আদায় করব না? ধৈর্য্যধারণ করব না? সর্বাবস্থায় ধৈর্য্যশীলদের জন্য বেহেশতের সুসংবাদ রয়েছে।

মুফতি শাকিউল ইসলাম বলেন-সর্বাবস্থায় আল্লাহভীতি থাকতে হবে। আল্লাহকে ভয় করলাম, কিন্তু নামাজ পড়লাম না, রোজা রাখলাম না, তাকে ত্বাকওয়া বলে না। আল্লাহর বিধি বিধানকে বিনা বাক্যে মেনে নেয়া ও আমলের মাধ্যমে তা পালন করার নামই ত্বাকওয়া। কেয়ামতের দিন ত্বাকওয়ার ওজন হবে অনেক বেশি। আল্লাহর রঙ্গে অর্থাৎ ইসলামের রঙ্গে নিজেকে রাঙ্গিয়ে নিতে হবে। আল্লাহর বিধান ছেড়ে আমরা নিজেরা হতাশা ডেকে নিয়ে এসেছি। তা থেকে নিজেকে রক্ষা করতে হবে।

লেখকঃ আইনজীবী ও সংবাদকর্মী
হবিগঞ্জ ৫ আগষ্ট ২০২২
০১৭১১-৭৮২২৩২

 

সামাজিক মিডিয়ায় শেয়ার করুন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরো খবর
Developer By Zorex Zira

Designed by: Sylhet Host BD