সিয়ামের বিয়ে

বিয়ের মাধ্যমে প্রেমের পরিণতি টানতে যাচ্ছেন অভিনেতা সিয়াম আহমেদ। বিজয় দিবসে প্রেমিকা শাম্মা রুশাফি অবন্তীর সাথে আকদ হবে তার। এ প্রসঙ্গে সিয়াম বলেন, ‘আমার সাথে আবন্তীর সম্পর্ক প্রায় সাত বছর আগে থেকে। আমাদের পরিবার বিষয়টা জানতেন। সম্পতি উভয় পক্ষ মিলে আমাদের বিয়ের সিদ্ধান্ত নেন। এরই মধ্যে গত শুক্রবার গায়ে হলুদ সম্পন্ন হয়েছে। ১৬ ডিসেম্বর আমাদের আকদ হবে।’

নর্থ সাউথ বিশ্ববিদ্যালয় থেকে হিউম্যান রিসোর্স বিষয়ে স্নাতক শেষ করেছেন অবন্তী। এখন একটি বেসরকারি প্রতিষ্ঠানে ইন্টার্নি করছেন। বিশ্ববিদ্যায়ের প্রথম বর্ষ থেকে তাদের দুজনের পরিচয়। অন্যদিকে মা-বাবার একমাত্র ছেলে সিয়াম পড়াশোনায়ও ভীষণ মেধাবী। মা-বাবার ইচ্ছায় ২০১০ সালে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে হিসাববিজ্ঞান বিভাগে ভর্তি হন। কিন্তু পরের বছর ইউনিভার্সিটি অব লন্ডনে ভর্তি হয়ে সেখান থেকে আইন বিষয়ে স্নাতক সম্পন্ন করেন। যুক্তরাজ্য থেকে বার অ্যাট ল শেষ করে দেশে ফিরে অভিনয়ে পুরোদস্তুর জড়িয়ে পড়েন।

চার বছর আগে ‘ভালোবাসা ১০১’ নাটকের মধ্য দিয়ে অভিনয়জীবন শুরু সিয়ামের। তারও দুই বছর আগে থেকে বিজ্ঞাপনচিত্রের কাজ করছেন তিনি। তবে চলচ্চিত্রে এসে বেশি সফলতা পেয়েছেন সিয়াম। প্রথম সিনেমা ‘পোড়ামন ২’ দিয়ে দর্শক হৃদয়ে জায়গা করে নেন। সম্প্রতি মুক্তি পাওয়া ‘দহন’ ছবিটি সিয়ামের জনপ্রিয়তা আরও বহুগুণ বাড়িয়ে দেয়। চলচ্চিত্রসংশ্লিষ্ট অনেকের মতে, বাংলাদেশের সিনেমায় নির্ভরতার একটি নাম হতে পারে সিয়াম। শুধু অভিনয় নয়, সিয়ামের ব্যক্তিত্বও চলচ্চিত্রের সবাইকে মুগ্ধ করে।

নতুন জীবন শুরুর আগে সিয়াম বলেন, ‘জীবনের শেষ দিন পর্যন্ত আমরা একসঙ্গে থাকব, এমন ভাবনা থেকে আমাদের সম্পর্কের শুরু। তার থেকেও বড় ব্যাপার হচ্ছে, সম্পর্কগুলো এখন এতটাই ভঙ্গুর হয়ে গেছে, সেখান থেকে একটা সম্পর্ক সাত বছর ম্যানটেইন করা, আর এবার নতুন জীবন শুরুর সিদ্ধান্ত নেওয়া সত্যিই সবার দোয়া ও আল্লাহর ইচ্ছা ছাড়া সম্ভব না। আমি যে পেশায় আছি, সেখানে তো আরও বেশি কঠিন। আমি সব সময় যে বিষয়টা দেখেছি, অবন্তী আমার প্রতি যতটা শ্রদ্ধাশীল তার চেয়েও বেশি আমার পেশার প্রতি। আমি যা করছি, সবকিছুতে সে সাপোর্ট করেছে। আমার প্রথম সিনেমায় কাজ করার আগে অনেক বেশি উৎসাহ দিত। অবন্তী যে সাপোর্ট আমাকে করে আসছে, এভাবে থাকলে পেশাগত ও ব্যক্তিজীবন দুই জায়গায় হয়েতো ভালো কিছু করতে পারব। একজন পুরুষের সফলতার পেছনে তার জীবনসঙ্গীর সমর্থন বড় ভূমিকা রাখে। তেমনি নারীর ক্ষেত্রেও জীবনসঙ্গীর সমর্থন খুব জরুরি।’

print

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *